৫ দফা দাবীতে সিলেট বিভাগে আজ থেকে পরিবহন ধর্মঘট

সিলেট ব্যুরো অফিস

  • প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০২১, ৫:২১ পূর্বাহ্ণ

৫ দফা দাবীতে হার্ডলাইনে গেলেন সিলেটের পরিবহন শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। এবার পুরো সিলেট বিভাগে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়ে মাঠে নামছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট বিভাগীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। আজ সোমবার ভোর ৬টা থেকে সিলেট বিভাগ জুড়ে সর্বাত্মক পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন তারা। এই ধর্মঘটে বাস মিনিবাস, ট্রাক, লরি, কার-মাইক্রোবাসের পাশাপাশি সিএনজি অটোরিক্সা সহ সবধরনের যান চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন তারা। ধর্মঘট সফলের লক্ষ্যে এক প্রস্তুতি সভা রোববার বিকেলে নগরীর দক্ষিণ সুরমা বাবনা পয়েন্টস্থ সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় কঠোর ভাবে ধর্মঘট সফল করতে পরিবহন শ্রমিকদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট বিভাগীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবু সরকারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সজীব আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সিলেট বিভাগের সকল সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন কমিটির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ময়নুল ইসলাম, সিলেট জেলা অটো রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন ৭০৭ এর সভাপতি জাকারিয়া আহমদ, সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুহিম। এছাড়াও সভায় সিলেট বিভাগের ১৬ টি পরিবহন ট্রেড ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় তারা বলেন, পরিবহন শ্রমিকরা গাড়ী চালাতে চায়। গাড়ী না চললে তারা বেকার হয়ে পড়ে। তবুও ন্যায্য ও যৌক্তিক দাবী আদায়ের জন্য মাঝে মাঝে ত্যাগ শিকার করতে হয়। পরিবহন শ্রমিকরা সেই ত্যাগ শিকারে প্রস্তুত রয়েছে।

জানা যায়, পরিবহন ধর্মঘট সফলের লক্ষ্যে গত ৩/৪ দিন থেকে সিলেট বিভাগের ৪ জেলায় ঝটিকা সফর চালিয়ে পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে ৫ দফা দাবী সম্বলিত লিফলেট বিতরণ করেন ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ। ৫ দফা দাবীতে ধর্মঘট আহ্বান করা হলেও চৌহাট্টা পয়েন্ট সংঘর্ষে পরিবহন শ্রমিক নেতাদের মামলা প্রত্যাহার ও সিলেটের মেয়াদোত্তীর্ণ ৪ সেতু থেকে টোল আদায় বন্ধই এই আন্দোলনের মূল্য লক্ষ্য।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সিলেট জেলা অটোটেম্পু, অটোরিক্সা চালক শ্রমিক জোট রেজি নং: ২০৯৭ এর ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা, প্রহসনের নির্বাচন ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ঘোষিত কমিটি বাতিল করা ও মনোনয়ন ফি বাবত আদায়কৃত লক্ষ লক্ষ টাকা ফেরত প্রদান এবং সিলেটের আঞ্চলিক শ্রম দফতরের উপ পরিচালককে প্রত্যাহার, সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি নং: বি-১৪১৮) নেতৃবৃন্দের উপর দায়েরকৃত মামলাসমূহ প্রত্যাহার, ট্রাফিক পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের সকল প্রকার হয়রানী বন্ধ, শেরপুর সেতু, শেওলা সেতু, লামাকাজী সেতু, শাহপরান সেতু ও ফেঞ্চুগঞ্জ সেতু থেকে টোল আদায় বন্ধ এবং চৌহাট্টা সহ নগরীর বিভিন্ন স্থানে কার, মাইক্রোবাস, লেগুনা, সিএনজি অটোরিক্সাসহ ছোট গাড়ীর পার্কিং ব্যবস্থার দাবীতে দীর্ঘদিন থেকে আন্দোলন করে আসছেন সিলেটের পরিবহন শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। এসব দাবীতে একাধিক বার পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়ে পরে প্রশাসনের সাথে বৈঠক করে সমাধানের আশ^াসে ধর্মঘট প্রত্যাহার করেন তারা। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে তারা সিলেট বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ কমিশনার ও পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে স্মারকলিপিও দিয়েছেন। কিন্তু আশ^াস বাস্তবায়ন না হওয়ায় এবার তারা সকল পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন ও জোটকে নিয়ে দেশের শীর্ষ পরিবহন সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন ফেডারেশনের ব্যানারে কঠোর কর্মসূূচীর ডাক দিয়েছেন।

জানা যায়, সিলেট অঞ্চলের মেয়াদোত্তীর্ণ ৪ সেতুতে টোল আদায় বন্ধ ও পুলিশী হয়রানী বন্ধের দাবীতে গত মাসের শুরুতে সিলেটে পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন সহ সিলেটের কয়েকটি পরিবহন শ্রমিক সংগঠন। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দুর্গাপুজা থাকায় সিলেট-৩ আসনের এমপি হাবিবুর রহমান হাবিবের আশ^াসে ঐ সময় পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করেন তারা। এদিকে এমপি হাবিবের উদ্যোগে সিলেটের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে একটি সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ঐ বৈঠকে পরিবহন শ্রমিক নেতৃবৃন্দের যৌক্তিক দাবী মেনে নেয়ার আশ^াস দেয়া হয়। এজন্য তারা ২১ নভেম্বর ডেটলাইন দেন। কিন্তু বৈঠকের পর আজ অবধি কোন দাবী পূরণ না হওয়ায় ২২ নভেম্বর থেকে শুধু সিলেট জেলা নয়, পুরো সিলেট বিভাগে সর্বাত্মক পরিবহন ধর্মঘট পালনের প্রস্তুতি নেন তারা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সিলেট বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক সজীব আলী বলেন, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। একদিন পরিবহন বন্ধ থাকলে সিলেটের হাজার হাজার শ্রমিকের পরিবার আয় থেকে বঞ্চিত হয়। তবুও আমরা চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি। সোমবারের (২২ নভেম্বর) পরিবহন কর্মবিরতি বাস্তবায়নে আমাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি রয়েছে। রোববার এ নিয়ে আমাদের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত সভায় পরিবহন কর্মবিরতি সফলে করনীয় নির্ধারণ করা হয়েছে।

সিলেট জেলা বাস মিনিবাস কোচ মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুহিম বলেন, ৫ দফা দাবীতে আমরা প্রশাসনের বরাবরে ১৫ দিনের আল্টিমেটাম দিয়ে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছিলাম। যা ২১ নভেম্বর পর্যন্ত ছিল। আমরা স্মারকলিপিতে বলেছিলাম ২১ নভেম্বরের মধ্যে আমাদের দাবী পূরণ না হলে ২২ নভেম্বর থেকে শুধু সিলেট জেলা নয়, গোটা বিভাগে সব ধরনের পরিবহন কর্মবিরতি পালিত হবে। প্রশাসন আমাদের দাবী উপেক্ষা করেছে। তাই বাধ্য হয়েই আমরা পূর্বঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী সোমবার ভোর ৬টা থেকে পরিবহন কর্মবিরতি পালনে বদ্ধ পরিকর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই সম্পর্কিত আরও খবর...